বিশ্বজিৎ দাস : বাঙালি শ্রেষ্ঠ উৎসব দুর্গাপূজো।বাঙালির আনন্দ এই উৎসবকে ঘিরেই তৈরি হয়। পুজোর এই চারটে দিন মানুষ প্যান্ডেল হপিং করে। কিন্তু এ বছর দুর্গাপুজো অন্যান্য বছরের তুলনায় অনেকটাই আলাদা। কলকাতা হাইকোর্ট দুর্গাপুজার মণ্ডপে মানুষের প্রবেশ নিষেধ করেছে। এবার যারা বাইরে থেকে ঠাকুর দেখবে এবার সেটাও মাটি করতে পারে বৃষ্টি।

আজ মহাপঞ্চমীতে আলিপুর আবহাওয়া দপ্তর ভারী বৃষ্টির পূর্বাভাস দিল। দুর্গাপুজোয় ভারী বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে কলকাতা ও তার সংলগ্ন এলাকায়।পুজোর সময় বঙ্গোপসাগরে তৈরি নিম্নচাপের ফলে বৃষ্টির পূর্বাভাসের পরেই তাই ব্যবস্থা নেওয়া শুরু করেছে প্রশাসন। মৎস্যজীবীদের সমুদ্রে যেতে নিষেধ করা হয়েছে। উপকূলবর্তী এলাকায় মোতায়েন করা হয়েছে বিপর্যয় মোকাবিলা বাহিনীকে।

গভীর নিম্নচাপ তৈরি হয়েছে বঙ্গোপসাগরে, ক্রমেই সেই নিম্নচাপ আরও শক্তি বাড়াচ্ছে। শক্তি বাড়িয়ে পশ্চিম ও মধ্য বঙ্গোপসাগের হয়ে তা পশ্চিমবঙ্গ ও বাংলাদেশের দিকে সরে আসছে। আবহাওয়া অফিস আরও জানিয়েছে, উপকূলবর্তী এলাকাগুলিতেই এই ক’দিন নিম্নচাপের প্রভাব থাকবে। তাই ভারী থেকে অতি ভারী বৃষ্টির আশঙ্কা থেকেই যাচ্ছে গাঙ্গেয় পশ্চিমবঙ্গে।

আলিপুর আবহাওয়া দফতরের তরফে জানানো হয়েছে, বৃহস্পতিবার থেকে শনিবার অর্থাৎ ষষ্ঠী থেকে অষ্টমী পর্যন্ত এই নিম্নচাপের প্রভাবে দক্ষিণবঙ্গের একাধিক জেলা যথা উত্তর ও দক্ষিণ ২৪ পরগনা, পূর্ব ও পশ্চিম মেদিনীপুর, কলকাতা, হাওড়া, হুগলিতে ভারী থেকে অতিভারী বৃষ্টি হবে।হাওয়া অফিস আরও জানিয়েছে, বৃহস্পতিবার থেকে শনিবার পর্যন্ত দুই মেদিনীপুর, দুই ২৪ পরগনায় ৪০ থেকে ৬০ কিলোমিটার গতিবেগে ঝড় বইবে। এছাড়া শুক্র ও শনিবার কলকাতা, হাওড়া ও হুগলিতে ৩০ থেকে ৫০ কিলোমিটার বেগে ঝড়ের পূর্বাভাস রয়েছে।