নির্বাচন কমিশন ধৃতরাষ্ট্রকে দেখছে না

নির্বাচন কমিশন ধৃতরাষ্ট্রকে দেখছে না

বাংলায় পঞ্চম দফার ভোটের আগে নির্বাচন কমিশন মমতা ব্যানার্জির প্রচার ২৪ ঘন্টার জন্য নিষিদ্ধ করেছে। ১২ এপ্রিল রাত ৮টা থেকে ১৩ এপ্রিল রাত ৮ টা পর্যন্ত নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে। নির্বাচন কমিশনের এই সিদ্ধান্তকে টিএমসি গণতন্ত্রের কালো দিবস বলে অভিহিত করেছে। একই সঙ্গে টিএমসি-র বিতর্কিত নেতা অনুব্রত মণ্ডল কমিশনকে অন্ধ ধৃতরাষ্ট্র বলে অভিহিত করেছেন।

বাংলা টিভি চ্যানেলের সঙ্গে কথা বলতে গিয়ে বীরভুম টিএমসি সভাপতি অনুব্রত মণ্ডল বলেন, নির্বাচন কমিশন অন্ধ ধৃতরাষ্ট্রে পরিণত হয়েছে। রাহুল সিনহা এবং দিলীপ ঘোষ যখন বিতর্কিত বিবৃতি দেন, তখন কমিশন খোঁচা দেয়, কিন্তু মমতা ব্যানার্জির সামাজিক সংহতির বক্তব্যের উপর কাজ করেছে।

তিনি বলেন, আমি অনেক নির্বাচন দেখেছি, কিন্তু এই ধরনের কমিশন এবং কমিশনার কে দেখিনি। টিএমসি সাংসদ ডেরেক ও’ব্রায়েন একটি টুইটে বলেছেন যে কমিশনের সিদ্ধান্ত গণতন্ত্রের আলিঙ্গনের মতো। তিনি আরও বলেন, নির্বাচনের সময় কমিশন একেবারে দুর্বল হয়ে পড়েছে।

১২ ই এপ্রিল আমাদের গণতন্ত্রের একটি কালো দিন। আমরা সবসময় জানতাম যে আমরা বাংলা জিতছি। একই সঙ্গে দলের আরেক নেতা কুনাল ঘোষ কমিশনের সিদ্ধান্ত সম্পর্কে বলেন, ‘কমিশন বিজেপির শাখার মতো কাজ করছে। এই নিষেধাজ্ঞা অত্যধিক এবং এটি একনায়কতন্ত্রের গন্ধ। কমিশনের একমাত্র লক্ষ্য ব্যানার্জিকে প্রচার থেকে বিরত করা কারণ বিজেপি ইতিমধ্যে ইতোমধ্যে পরাজয় হারিয়েছে। এটা বিব্রতকর।

আপনাদের বলতে চাই যে আজ মমতা ব্যানার্জি নির্বাচন কমিশনের ২৪ ঘন্টার জন্য প্রচার নিষিদ্ধ করার সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে গান্ধীর কলকাতার মূর্তিতে বসবেন। টিএমসি সুপ্রিমো টুইট করেছেন যে এটি একটি অসাংবিধানিক এবং অগণতান্ত্রিক সিদ্ধান্ত। গতকাল গভীর রাতে মমতা ব্যানার্জির এক বিবৃতির ভিত্তিতে কাজ করার সময় কমিশন ২৪ ঘন্টা ধরে তাঁর প্রচার বন্ধ করে দেয়।


© ২০২০ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Design & Developed BY Bengal95 News