ঈশিতা দাশ,কলকাতা:হাথরাস গণধর্ষণ মামলায় এবার চাঞ্চল্যকর তথ্য সামনে এলো।১৪ই সেপ্টেম্বরের সিসিটিভি ফুটেজ অর্থাৎ যেদিন নির্যাতিতাকে জেলা হাসপাতালে আনা হয়, সেদিনের সমস্ত ফুটেজ মুছে ফেলা হয়েছে। এই প্রসঙ্গে হাথরাস জেলা হাসপাতালের চিফ মেডিকেল সুপারিন্টেন্ডেন্ট ইন্দ্র বীর সিং(Indra Veer Singh) বলেন যে পুলিশ যদি তাদের অনুরোধ করত তাহলে হাসপাতাল ফুটেজ সংরক্ষণ করত।

ফুটেজ প্রতি সাত দিন অন্তর মুছে ফেলা হয় এবং তারপর আবার নতুন ফুটেজ রেকর্ড করা হয়। আমরা কোন ব্যাক-আপ রাখি না যদি না সুনির্দিষ্টভাবে বলা হয়,”। ঘটনার পর নির্যাতিতাকে প্রথমে চিকিৎসার জন্য জেলা হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয় এবং এই ফুটেজে তার শারীরিক অবস্থা সম্পর্কে গুরুত্বপূর্ণ প্রমাণ পাওয়া যেত এমনটাই ভেবেছিলেন তদন্তকারী টিম।

সিবিআই(CBI) টিম ডাক্তারদের বয়ান রেকর্ড এবং প্রমাণ জোগারে হাসপাতালে গিয়েছিল।

সিবিআই(CBI) সূত্র বলছে,যে এই ফুটেজ তাদের তদন্তে সাহায্য করত।যখন তাকে সেখানে আনা হয়, যে তার সাথে দেখা করে এবং যখন সে সেখানে ছিল তখন সে তার সাথে কথা বলে।

একজন পুলিশ কর্মকর্তা বলেছেন যে অপরাধ সংক্রান্ত তদন্তের সাথে হাসপাতালের “কোন সম্পর্ক নেই”। “যদি না হাসপাতালে কোন অপরাধ সংঘটিত হয় অথবা গাফিলতি রিপোর্ট করা হয়, তাহলে এর কোন প্রভাব পড়বে না ফৌজদারি তদন্তের উপর। এগুলো অসম্পৃক্ত জিনিস।এজন্যই সিসিটিভি ফুটেজ বিবেচনা করা হয়নি,” তিনি বলেন।