রনিজ রাজা মন্ডল – আমাদের বর্তমান সমাজের একটি ভীষণ বড়ো সমস্যা হলো বডি শেমিং । সাধারণ মানুষের গায়ের রং, উচ্চতা, রোগা না মোটা এসব নিয়ে চলতে থাকে শেমিং। বাদ পড়েন না সেলিব্রেটিরাও। এবার বড়সড় বডি শেমিং এর স্বীকার হলেন অভিনেতা অনির্বাণ ভট্টাচার্য।

২২সে অক্টোবর, বৃহস্পতিবার জয়রাজ ভট্টাচার্য পরিচালিত ‘ঘ্যাচাং ফু’ ছবির একটি ছোট্ট দৃশ্য ভাইরাল হয়। যেখানে একটি ঘনিষ্ঠ মুহুর্তে অভিনেতা অনির্বাণ ভট্টাচার্যের যৌনাঙ্গ দৃশ্যমান।

ভিডিওটি ভাইরাল হবার পরেই ছড়িয়ে পড়ে বিভিন্ন সোশ্যাল মাধ্যমে। তারপর থেকেই প্রকাশ্যে অভিনেতার যৌনাঙ্গের আকার নিয়ে শেমিং চলতে থাকে। বিভিন্ন মিম পেজ থেকে শুরু করে, বহু মানুষ নিজের সোশ্যাল সাইটে অভিনেতার বডি শেমিং করে পোস্ট করে এমনকি অভিনেতার ফেসবুক পেজের ছবিতেও চলতে থাকে কুরুচিপূর্ণ মন্তব্য।

প্রসঙ্গত জয়রাজ ভট্টাচার্য পরিচালিত “ঘ্যাচাং ফু” সিনেমাটি একটি পলিটিক্যাল স্যাটায়ারের ওপর নির্মিত। সিনেমাটির ট্রেলার রিলিজের পরেই সিনেমাটি ভারতে ব্যান করা হয়। এখন বিভিন্ন ফিল্ম ফেস্টিভ্যালে সিনেমাটি দেখানো হচ্ছে।

চরিত্রের প্রয়োজনে অভিনেতা-অভিনেত্রীদের সাহসী দৃশ্যে অভিনয় নতুন নয়। এর আগেও ঋতুপর্ণা সেনগুপ্ত, পাউলি দাম, রাধীকা আপ্তে , অনুব্রত বসু, ঋ সেন প্রমুখরাও নানান সাহসী চরিত্রে অভিনয় করেছেন। তাই অনির্বাণ ভট্টাচার্যের মতো প্রথম সারির অভিনেতার এমন দৃশ্যে অভিনয় অবশ্যই সাহসিকতার দাবী রাখে বলে মনে করেন একাংশ মানুষ। তারপরেও তাঁকে নিয়ে এমন মন্তব্যের কেন করা হচ্ছে, তাই নিয়েও সরব হয়েছেন কিছু মানুষ।