পাকিস্তানও নেপালের দিকে যাচ্ছে। গতকাল একটি ম্যাপ ঘিরে নতুন করে তোলপাড় হয়েছে দেশ। পাকিস্তানের ইমরান খান সরকার বিতর্কিত মানচিত্র অনুমোদনও করেছে। মানচিত্রে পাকিস্তান কাশ্মীরকে নিজস্ব হিসেবে বর্ণনা করেছে। আগে পাকিস্তান শুধু পোক শেয়ার করতো, কিন্তু এখন নতুন মানচিত্রে কাশ্মীর কে আবৃত করা হয়েছে। পাকিস্তান লাদাখ, সিয়াচেন থেকে গুজরাটের জুনাগড় পর্যন্ত নতুন মানচিত্রে দাবি করেছে।

পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান একে পাকিস্তানের ইতিহাসে সবচেয়ে ঐতিহাসিক দিন বলে অভিহিত করেছেন। বিতর্কিত মানচিত্রটি ইমরান খানের মন্ত্রিসভা কর্তৃক অনুমোদিত হয়। মন্ত্রিসভার বৈঠকের পর ইমরান খান একটি নতুন রাজনৈতিক মানচিত্র প্রকাশ করেন। মানচিত্রে কাশ্মীরকে পাকিস্তানের অংশ হিসেবে দেখানো হয়েছে।



তিনি বিতর্কিত মানচিত্রঅনুমোদন করেন, যার মধ্যে রয়েছে ভারতের কালাপানি, লিপুলেক এবং লিনপিয়াক্স। নেপাল ২০ মে বিতর্কিত মানচিত্র প্রকাশ করে, যা সেখানকার সংসদ কর্তৃক অনুমোদিত হয়েছে। তিনি এখন জাতিসংঘ সংস্থা (UNO) এবং গুগল সহ বিতর্কিত মানচিত্র আন্তর্জাতিক স্তরে কাছে পাঠানোর প্রস্তুতি নিচ্ছেন।



জম্মু ও কাশ্মীর থেকে ৩৭০ ধারা প্রত্যাহারের মাত্র একদিন আগে পাকিস্তান বিতর্কিত মানচিত্র প্রকাশ করেছে। গত বছরের ৫ই আগস্ট জম্মু ও কাশ্মীর থেকে ৩৭০ ধারা সরিয়ে ফেলার ঐতিহাসিক সিদ্ধান্ত নিয়েছিল মোদী সরকার। ভারতের এই পদক্ষেপের পর পাকিস্তানের বুদ্ধিবৃত্তিকতাও দেখা যায়। তিনি তার দেশের জনগণকে খুশি করার জন্য একটি নতুন মানচিত্র প্রকাশ করেছেন। এদিকে পররাষ্ট্রমন্ত্রী শাহ মাহমুদ কুরেশি বলেছেন, নতুন মানচিত্রটি স্কুলের পাঠ্যক্রমে অন্তর্ভুক্ত করা হবে।