Sushant Singh Rapoot Death Case:সুশান্ত সিং রাজপুতের মৃত্যু নিয়ে মহারাষ্ট্র সরকার এবং মুম্বাই পুলিশকে সারা দেশে প্রশ্নের মুখে পড়তে হচ্ছে। অভিযোগ উঠছে যে মহারাষ্ট্র সরকার এই ক্ষেত্রে কাউকে বাঁচানোর চেষ্টা করছে। শুধু তাই নয়, মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী উদ্ধব ঠাকরের ছেলে এবং শিবসেনা নেতা আদিত্য ঠাকরের নামও এই মামলায় টেনে আনা হচ্ছে। পুরো বিষয় এবং বিতর্ক নিয়ে আদিত্য ঠাকরে আজ তার বিবৃতি প্রকাশ করেছেন।

আদিত্য ঠাকরে টুইটারে তার বিবৃতি পোস্ট করে লিখেছেন,এটা নোংরা রাজনীতি, কিন্তু আমি এখনও সংযম বজায় রেখেছি।আমাদের দেশে করোনা সংকট চলছে। এছাড়াও মহারাষ্ট্র সরকার করোনা বন্ধ করতে প্রস্তুত এবং একটি বিশাল পরিসরে সফলও হয়েছে। যারা জনপ্রিয়তা পছন্দ করেন তারা এখন সুশান্ত সিং রাজপুত মামলা নিয়ে নোংরা রাজনীতি শুরু করেছেন। সুশান্তের মৃত্যু শুধু আমার নয়, ঠাকরের পরিবারের উপরও তার প্রভাব পড়ছে ।



এই ধরনের রাজনীতি নিন্দনীয়। এভাবে কারো মৃত্যু নিয়ে বিতর্ক করা লজ্জাজনক। মূলত, এই কেসের সাথে আমার কোন সম্পর্ক নেই। বলিউড এই মুম্বাই শহরের একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ। এই শিল্প হাজার হাজার লোক নিয়োগ করে। এর সাথে জড়িত অনেক লোকের সাথে আমার একটা সম্পর্ক আছে, অবশ্যই,। সুশান্তের মৃত্যু সবার জন্য একটা ধাক্কা। মুম্বাই পুলিশ সব দিক থেকে বিষয়টি তদন্ত করছে। কিন্তু যারা আইনে বিশ্বাস করে না তারা এই ক্ষেত্রে অপ্রয়োজনীয় অভিযোগ করে তা থেকে বিচ্যুত হচ্ছে।



“তার বিবৃতিতে আদিত্য ঠাকরে বলেছেন,আমি হিন্দুহৃদয় সম্রাট বালাসাহেব ঠাকরের নাতি এবং তাই আমি বলতে চাই যে শিবসেনা, মহারাষ্ট্র এবং ঠাকরে পরিবার আমার হাত দ্বারা নষ্ট হবে না। যারা অপ্রয়োজনীয় অভিযোগ করে তাদের এটা বোঝা উচিত। এই মামলায় কারো কাছে কোন তথ্য আছে কিনা তা মুম্বাই পুলিশকে জানান। এটা অবশ্যই তা তদন্ত করা হবে। এই ক্ষেত্রে, আমি এখনো সংযম প্রয়োগ করছি। “আমি আপনাদের বলতে চাই যে বলিউড সেলিব্রিটি সুশান্ত সিং এবং আদিত্য ঠাকরের মধ্যে সম্পর্ক নিয়ে অভিযোগ ছিল যে তিনি সুশান্তের মৃত্যুতে আমার হাত রয়েছে । সোশ্যাল মিডিয়ায় ব্যাপক আলোড়ন সৃষ্টি হয় এবং আদিত্য ঠাকরেকেও ট্রোল করা হয়।