গত কয়েকদিন ধরে উত্তপ্ত চীন ও ভারত সীমান্ত।যার কারণে ভারতে শহীদ হয়েছে প্রায় ২০জন সৈন্য।একদিকে যেমন করোনার মতো মারণ ভাইরাসের বিরুদ্ধে গোটা দেশ লড়ছে ওপর দিকে সীমান্তে দেশকে রক্ষা করতে লড়ছে ভারতীয় সৈন্য রা।৪৫ বছর পরে ফের মৃত্যুর ছবি দেখল ভারত-চিন সীমান্ত। গত কয়েকদিন ধরে গালওয়ান উপত্যকা দখলের মরিয়া চেষ্টা চালাচ্ছে চিন।



আর ঠিক এই কারণে দুই দেশের সেনার মধ্যে দফায় দফায় সংঘর্ষ হয় লাদাখ সীমান্তে। শহিদ ২০ জন সেনা জওয়ান এবং একজন সেনা অফিসার।
সোমবার রাতে সংঘর্ষে প্রাণ হারিয়েছেন বিহারের কুন্দন কুমারও।একমাত্র ছেলের মৃত্যুতে ভেঙে পড়েছে পরিবার।ছেলে দেশকে রক্ষা করতে গিয়েই শহিদ হয়েছে।শহীদ ছেলের জন্য গর্বিত কুন্দন কুমারের বাবা। বুধবার সর্বভারতীয় সংবাদ সংস্থাকে সাক্ষাৎকারে জানিয়েছেন,ছেলের মৃত্যু সংবাদ শোনার পর ভেঙে পড়লেও,ছেলের দেশের জন্য আত্মবলিদান দিয়েছে নিজেকে সেটার জন্য গর্বিত তিনি।



এদিন তিনি আরও জানান,ছেলে দেশের জন্য প্রাণ দিয়েছে,তার জন্য চিনকে পাল্টা জবাব দিতে নিজের দুই নাতিকে সেনাবাহিনীতে পাঠাবেন ভবিষ্যতে।তাঁর ছেলের আত্মার শান্তির জন্য চিনকে যোগ্য জবাব দিক ভারতীয় সেনা এটাই চান তিনি।
সোমবারের পর বুধবার সকালে সূত্রের খবর, আরও ৪ জন ভারতীয় জওয়ান সংকটজনক অবস্থায় রয়েছে বলে জানা গিয়েছে।



সীমান্ত লাগোয়া হিমাচলপ্রদেশে হাই-অ্যালার্ট জারি করা হয়েছে। এই অঞ্চলে একাধিক জায়গায় সেনাবাহিনী কড়া টোহলদারিতে রয়েছে। সেখানেও চিনের এগিয়ে আসার আশঙ্কা উড়িয়ে দেওয়া যাচ্ছে না। শুধু তাই নয়, গ্রামবাসীদেরও সতর্ক করা হয়েছে।