করোনার(Corona virus) সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ার কারনে এই মুহূর্তে যত দ্রুত সম্ভব টেস্টে করা।তাই ভারতে এই মুহূর্তে বিপুল সংখ্যক মানুষের টেস্ট করার জন্য টেস্ট কিট নেই আর সেই কারণে করোনার এপি সেন্টার চীন থেকে আপাতত ভারত র‍্যাপিড টেস্ট কিট(corona rapid test kit) আমদানি করেছে। কিন্তু এখানেও এক সমস্যার সম্মুখীন হতে হচ্ছে রাজ্যগুলিকে।চীনের পাঠানো কিট গুলো ভারতের রাজ্যগুলো ব্যবহার করতে পারছে না,অধিকাংশ জায়গাতে করোনা টেস্টর রেজাল্ট অপূর্ন থেকে যাচ্ছে।



যেহেতু চীনের পাঠানো টেস্ট কিট ব্যবহার ঝুঁকি থেকে যাচ্ছে তাই গত সপ্তাহেই রাজ্যগুলিকে সেই কিট ব্যবহার না করার নির্দেশ দিয়েছে ইন্ডিয়ান কাউন্সিল(ICMR)।পরিস্থিতি সামাল দিতে ভারতের পুরোনো পিসিআর(PCR) পদ্ধতিতেই পরীক্ষা করার কথা জানানো হয়েছে। গুণগত মানে সমস্যা থাকায় কিটগুলো চীনকে ফিরিয়ে দেওয়ার কথা জানায় ভারত। কিন্তু চীন এই পরিস্থিতিতে দাঁড়িয়েও ভারতের কোনও কথা শুনতে চাইছে না। উল্টে দোষ চাপাচ্ছে ভারতের উপরে। ভারতের কিট নিয়ে মতামত জানানোর পর তারা জানিয়েছে, এই কিট বহু দেশ ব্যবহার করছে,তাহলে সেক্ষেত্রে অভিযোগ শুধু ভারতের তরফেই কেন?খারাপ জিনিস দিলে সব দেশই এই অভিযোগ আনতো।



চীনের এটাও দাবি, দোষ নাকি ভারতেরই তারা কিট ব্যবহার করতে পারেনি যথাযথ ভাবে।
সোমবার চীনা দূতাবাসের মুখপাত্র জি রং বলেন, আমরা জানি,ভারতের প্রয়োজনীয়তার কথা মাথায় রেখেই সাড়ে পাঁচ লক্ষ র‍্যাপিড অ্যাকশান কিট আমদানি করেছে তারা।শুধু ভারত নয়,অন্যান্য জায়গাতেও পাঠানো হয়েছে।তারা এখনো কোনো অভিযোগ করেননি।কিটে কোনো সমস্যা নেই। অজ্ঞ ব্যক্তিরা এই কিট সঠিকভাবে ব্যবহার করতে না পারায় কোনও ফল পাওয়া যাচ্ছে না।



চিনের দুই সংস্থা গুয়াংঝো ওয়ান্ডফো বায়োটেক ও লিভজন ডায়াগনিস্টিক।যারা মূলত করোনা চিকিৎসার এই কিট তৈরি করছে।তারাও ভারতের কিট খারাপের খবরে বিস্মিত।তবে সব রকম অবস্থায় সাহায্যের আশ্বাস দেওয়া হয়েছে ওই দুই কোম্পানির তরফে।তাদের সমস্ত কিট ন্যাশানাল মেডিক্যাল প্রোডাক্টস অ্যাডমিনিস্ট্রেশন অব চায়না দ্বারা স্বীকৃত এবং সেক্ষেত্রে গুণগত মান নিয়ে কোনও প্রশ্ন নেই জানিয়েছেন তারা। তাদের সব কিট একদম ঠিক। বহু দেশ তাদের এই কিট ব্যবহার করছে এবং রেজাল্টও পাচ্ছে। এছাড়া ভারতের ন্যাশনাল ইন্সটিটিউট অব ভাইরোলজির(ICMR) স্বীকৃত এই কিট।এরপর কেন অসুবিধা হবে এই কিট ব্যবহারে?

তবে চীন এই পরিস্থিতিতে ভারতের স্বাস্থ্য কর্মীদের ওপরেই সব দোষ চাপিয়ে যাচ্ছে,যা নিয়ে ক্ষুব্ধ দেশ।চীনা দূতাবাস এও বলছে চিন বিপদে সমস্ত রকমের সাহায্যের আশ্বাস দেওয়ার পরও এ কেমন ধরনের অকৃতজ্ঞতা বলে জানিয়েছে তারা।সব মিলিয়ে ভারত চীন সম্পর্কে ফাটল গভীর হচ্ছে এ কথা হয়তো বলার অপেক্ষা রাখে না।।

প্রয়োজনে সেনা নামানো হোক,মানুষের কার্যকলাপে রেগে আগুন ভাইজান!

মাস্ক ব্যবহারে আটকাবে না করোনা!কি বলছেন বিশেষজ্ঞরা?

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here