পেশায় লোকোপাইলট, নেশায় পেইন্টিং সাথে লেখালেখি। ছোটোবেলা থেকেই ছবি আঁকায় মন। উদাস ঝোলাব্যাগে করে ছবি আঁকার সরঞ্জাম নিয়ে পৌঁছে যাওয়া রঙ তুলির ক্লাসে। তবু বিধি তো বামে থাকে।পড়াশোনা এবং চাকরিসূত্রে একের পর এক বাধা। কিন্তু শিল্পীর যে হার মানা বারণ।তাই হাজার বিপত্তি আসলেও, থামাতে পারেনি তাঁকে। জীবন তাঁকে দিয়েছে প্রায় এক দশকের নির্বাসন। চাকরিসূত্রে প্রায় জনমানবশূন্য, প্রাণের শহর ও বাসস্থান থেকে অনেক দূরে জীবনের প্রাইম টাইম হারিয়ে ফেলেছেন তিনি। বাইরে থাকাকালীন ছবি, কবিতা এবং পড়াশোনার ক্রমবর্ধমান দূরত্বকে অনুভব করেছেন প্রতিদিন। আর সেই যন্ত্রণাই যেন ফিরে ফিরে এসেছে তাঁর ক্যানভাসে। কবি শঙ্খ ঘোষ শিল্পী সৌমেন পালের এই কর্মযজ্ঞের নাম দিলেন ‘নির্বাসন’।জীবনের ছবিকে তুলির টানে রঙ দিয়েছেন তিনি,আপন মনের মাধুরী মিশায়ে। যদিও কখনো কখনো তা ভীষণই ফ্যাকাশে, তবু তার রেশ যায় কি? এই ‘মনকেমনের ছবি’নিয়েই শিল্পী সৌমেন পাল আয়োজন করেছিলেন এক প্রদর্শনীর। প্রত্যক্ষদর্শী আমরা,সৌভাগ্য বেঙ্গল95-এর। অনুষ্ঠান আলো করেছিলেন কবি শঙ্খ ঘোষ,চিত্রকর গণেশ হালুই, গায়ক ও চিত্রপরিচালক অনিন্দ্য চট্টোপাধ্যায়, সব্যসাচী দেব প্রমুখ দীপ্ত ব্যক্তিত্বেরা। আমরাও কথা বলে নিলাম শঙ্খবাবুর সঙ্গে। জানালাম আমাদের কথা। জানলাম তাঁরও কথা। স্নেহের পরশে বললেন পত্রিকা হাতে পেতে আগ্রহী। একদিন সময় করে নিশ্চয়ই তাঁর মতামত জানাবেন।

আমাদের ফেসবুক পেজটি লাইক করুন

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here