স্যোশাল মিডিয়ায় ঘুরপাক এখন কেবল কানাইয়া কুমার







রিয়াঙ্কা রায় স্যোশাল মিডিয়ায় এই মুহূর্তে সর্বক্ষণ ঘুরে বেড়াচ্ছে একটি ভিডিও। যেখানে একটি অনুষ্ঠানে কানাইয়া কুমারকে দেখা যাচ্ছে একজন মহিলার প্রশ্নের উত্তরে চমৎকারভাবে ভারতের বহুজাতিক সংস্কৃতির বিষয়টি ব্যাখ্যা করছেন। তার প্রশংসায় পঞ্চমুখ গোটা দুনিয়া।

ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে, ভারতের কমিউনিস্ট পার্টির শতবর্ষ উদযাপনের সময় ম্যাঙ্গালোরে একটি অনুষ্ঠানে একজন মহিলা বিজেপি সমর্থক তাকে প্রশ্ন করেন, তিনি সবার সমান অধিকারের কথা বলেন কিন্তু কেন 'এক রাষ্ট্র' এর কথা বলেন না? তার জবাবে তিনি দেশের বিভিন্ন বৈচিত্র্যের জটিল অবয়বকে ব্যখ্যা করেছেনএবং দাবি করেছেন যে এটাই ভারতকে অনন্য করে তোলে। জওহরলাল নেহেরু ইউনিভার্সিটির সিপিএম পার্টির ইউনিয়নের এই প্রাক্তন প্রেসিডেন্টের জবাব এরপর গোটা দুনিয়ার কাছে স্যোশাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়ে যায়।

যে মহিলা শিক্ষার্থী ‘জয় শ্রী রাম’ বলে তাঁর প্রশ্ন শুরু করেছিলেন, তিনি কানাইয়া কুমারকে একবার ‘জয় হিন্দ’ বলার অনুরোধ করেছিলেন। তিনি দাবি করেন, এভাবে তার বক্তব্য সার্বভৌমত্ব লাভ করবে। উত্তরে কানাইয়া বলেন, তিনি যে প্রদেশে জন্মেছেন সেখান রামের আগে সীতার নাম উচ্চারিত হয়। তিনি আরও বলেন, ভারত একটি অদ্বিতীয় রাষ্ট্র, কিন্তু ভারতের সংবিধান যা দেশের প্রতিনিধিত্ব করে তার ৩০০ টিরও বেশি পৃথক  নিবন্ধ রয়েছে। এমনকি, ওই একটি রাষ্ট্রের সংসদেরও দুটি ভাগ রয়েছে- লোকসভা এবং রাজ্য সভা। বহুত্বের এমন অনেক উদাহরণ যুক্ত করে কানাইয়া তার বক্তব্য অব্যাহত রাখেন। তিনি ওই সেমিনারে এও বলেন যে, কিভাবে শিক্ষার্থীরা ধীরে ধীরে প্রশ্ন করার উৎসাহ হারাচ্ছে, কারণ তার মতে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলিতে যেভাবে প্রশ্নের উত্তর দেওয়া সেখানো হয়, প্রশ্ন করা শেখানো হয় না।

তার উত্তরের তীরে বিদ্ধ হয়ে স্তব্ধ হয়ে যান ওই প্রশ্নকারিনী। স্যোশাল মিডিয়ায় কয়েক লাখ শেয়ার হয়েছে ভিডিওটি। যুবা থেকে বুদ্ধিজীবী মহলও তার এই ভিডিও নিয়ে প্রবল উচ্ছাসিত।