প্রয়াত প্রাক্তন অর্থমন্ত্রী

jaitley-3-1.jpg

পিনাকী চক্রবর্তী: প্রয়াত মোদী সরকারের প্রথম অর্থমন্ত্রী অরুণ জেটলি। মৃত্যুকালে বয়স হয়েছিল ৬৭ বছর।
সূত্রের খবর, শনিবারবার দুপুর ১২.০৭ মিনিট নাগাদ প্রয়াত হয়েছেন ভারতের প্রাক্তন অর্থমন্ত্রী অরুণ জেটলি।‌ শ্বাসকষ্ট জনিত সমস্যার জন্য চলতি বছরের ৯ আগস্ট দিল্লি এইমস হাসপাতালে ভর্তি করা হয় তাঁকে। প্রথমে তাঁকে কার্ডিওলজি বিভাগে ভর্তি করা হয়েছিল। কিন্তু শনিবার‌ অবস্থার অবনতি ‌হওয়ায় লাইফ সাপোর্ট্ সিস্টেমে রাখা হয়েছিল অরুণ জেটলিকে। এরপর ফুসফুস সঠিক ভাবে কাজ না করায় রবিবার তাঁকে একস্ট্রাকর্পোরিয়াল মেমব্রেন অক্সিজেনেশন বিভাগে স্থানান্তরিত করেন চিকিৎসকরা। এরপর  গত কয়েকদিন ধরে জেটলির স্বাস্থ্য সংক্রান্ত বিবৃতিও দেওয়া বন্ধ করে দিয়েছিলেন এইমসের চিকিৎসকরা। এরপরই খবর পাওয়া শনিবার দুপুর ‌১২.০৭  মিনিট নাগাদ প্রয়াত হয়েছেন অরুণ জেটলি।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য গত রবিবার বিকেলে অরুণ জেটলিকে দেখতে হাসপাতালে যান দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়াল এবং কেন্দ্রীয় মন্ত্রী ‌রামবিলাস পাসোয়ান। গরবিবার রাতে প্রাক্তন অর্থমন্ত্রীকে দেখতে‌ এইমসে পৌঁছেছেন কেন্দ্রীয় প্রতিরক্ষা মন্ত্রী রাজনাথ‌ সিংও। জেটলি প্রয়াত হওয়ার খবরে দিল্লি এইমসের বাইরে ভিড় করতে শুরু করেছেন বিজেপির নেতা-কর্মীরা। অরুণ জেটলি জাতীয় রাজনীতিতে অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিত্ব ছিলেন। একাধিক দপ্তরের মন্ত্রীত্বের দায়িত্ব নিপুণ ভাবে‌ পালন‌ করেছেন তিনি। তাঁর আমলেই চালু হয় সারা দেশে এক কর ব্যবস্থা ‌”জিএসটি”।

১৯৫২ সালের ২৮ ডিসেম্বর জন্মগ্রহণ ‌করেছিলেন‌ অরুণ জেটলি। কেন্দ্রীয় ‌মন্ত্রী‌ ছাড়াও সুপ্রিম কোর্টের স্বনামধন্য আইনজীবী হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেছেন তিনি। নরেন্দ্র ‌মোদী এবং ‌অটল বিহারী বাজপেয়ীর মন্ত্রীসভার আইন‌ মন্ত্রক‌, ‌তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রক , অর্থমন্ত্রক ,‌ প্রতিরক্ষা মন্ত্রকের মতো‌ বহু গুরুত্বপূর্ণ ‌মন্ত্রকের দায়িত্ব সামলেছেন অরুণ জেটলি। দু’দফায় রাজ্যসভার বিরোধী দলনেতার দায়িত্বও পালন করেছেন অরুণ জেটলি। কিন্তু বর্তমানে ‌বেশ কিছুদিন ধরেই কিডনি জনিত সমস্যায় ভুগছিলেন তিনি। ২০১৮ সালের ২৪ মে কিডনি প্রতিস্থাপনও হয় তাঁর। এরপর ক্যান্সার ও ধরা পড়ে জেটলির। এই‌ কারনেই চলতি বছর মোদী সরকার‌ ক্ষমতায় আসলেও মন্ত্রীত্ব নিতে স্বীকৃত হননি অরুণ জেটলি।

অরুন জেটলির প্রয়ানে‌ শোকের ছায়া নেমে এসেছে রাজনৈতিক মহলে। তাঁর মৃত্যুতে শোকপ্রকাশ করেছেন   কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী তথা বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি অমিত শাহ, কেন্দ্রীয় প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিং,  মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সহ আরও অনেক বিশিষ্ট রাজনীতিবিদ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

scroll to top